31 C
Dhaka
বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১

চল্লিশ বছরের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেত্রী মমতা ব্যানার্জী

যা পড়তে পারেন

:: এ টি এম গোলাম কিবরিয়া

দুইবাংলা মিলিয়ে হিসাব করলে, গত চল্লিশ বছরের সবচাইতে ইমপ্যাক্টফুল পলিটিশিয়ান মমতা ব্যানার্জী। এরশাদের মতন বন্দুকের জোর নাই, হাসিনা- খালেদার মতন বাপ-জামাইয়ের নাম নাই, জ্যোতি-বুদ্ধদেবের মতন একটা ডিসিপ্লিন্ড পার্টির লেগাসি নাই, কিচ্ছু নাই। কিন্তু প্রথমে চৌত্রিশ বছরের স্ট্যাটাস কো উৎখাত করলো, এখন রাম ঠেকাইতেছে এই চূড়ান্ত মোদীম্যানিয়ার যুগে।

আমি মমতার রাজনীতির গ্রাহক না, অবজার্ভার মাত্র। আই ডোন্ট লাইক অর ডিজলাইক হার বাট আই সার্টেইনলি এডমায়ারড হার স্ট্যান্ড এগেইন্সট এনআরসি। পশ্চিম বাংলায় বিজেপিকে যতদিন থামায়া রাখা যায়, ততদিনই বোনাস। মমতা ছাড়া কারো আনফরচুনেইটলি সেই ক্ষমতা নাই আর। আমরা জানি আপনার কিছু অবলিগেশন আছে কিন্তু এইবার তিস্তা নিয়া একটু উদার হোন দিদি, উই লাইক ইউ বাট উই উইল স্টার্ট টু লাভ ইউ দেন।

শঠতা, ভনিতা, ওভারপ্রমিজিং, জেদ, মেগালোম্যানিয়া, স্ট্রিট স্মার্টনেস আর পাবলিকের মন পড়তে পারার ক্ষমতা; বুর্জোয়া-পপুলিস্ট পলিটিশিয়ানের সবগুলো দোষ-গুণই আছে মমতার। পাকিস্তানের ভূট্টো, এখনকার ইমরান আর ষাটের দশকের শেখ মুজিব ছিলেন এইরকম। সময় যদি একটা সামুদ্রিক ঢেউ হয়, তাইলে দক্ষ সার্ফারের মতন সেই ঢেউয়ের চূড়ায় থাকতে পারেন তারা।

এইবার পারছেন মমতা, কিন্তু আগামীবার নিয়ে আমি সন্দিহান। বিজেপি ইনরোড তৈরী করে ফেলছে, মাইনরিটিঘৃণার মজা পাওয়ায়া দিছে সাধারণ মানুষকে এবং মমতার দল ক্ষমতার স্থিতিজড়তার কারণে আরো করাপ্ট হবে সামনে, এন্টি-ইনকাম্বেন্সি ইমোশন আরো স্ট্রং হবে তখন। সুবিধা হইতেছে, পশ্চিম বাংলায় সাতাশ ভাগ মুসলমান থাকেন, সংখ্যাটা নগণ্য না। মাইনরিটি দশভাগের নীচে হইলে পপুলিস্ট পলিটিশিয়ানদের জন্য সেক্যুলার পলিটিক্সে কনভিকশন রাখার ইনসেনটিভ কম, কিন্তু সাতাশ ভাগ হইলে এইটা ফেয়ার বাজি, ধরা যায়। আপনি এদের নিবেন আর মেজরিটি কন্সটিটুয়েন্সি থেকে একটা মোটামুটি সাইযেবল চাঙ্ক নিতে পারলেই আপনার পয়তাল্লিশ ভাগ হয়া যাবে। মমতা এই নাম্বার গেইম এখন পর্যন্ত ভালো ম্যানেজ করতে পারতেছেন।

কিন্তু যেহেতু কাল্ট বেইজড ওয়ান ম্যান(উইম্যান) আর্মি, এইটা সবসময়ই রিস্কি। পপুলিস্ট পলিটিশিয়ানরা একটা চিকন সুতার উপর দিয়া হাঁটে, মমতা মোটামুটি ব্যালেন্স রাইখা হাঁইটা গেছেন এখন পর্যন্ত। ছাত্র রাজনীতি দিয়া শুরু, ইলেকশনে আইসা সোমনাথ চ্যাটার্জির মতন হেভিওয়েটকে হারানো, এনডিএ জোটের সাথে কয়েকবছরের হাইড এন্ড সিক, তারপরে এখন তো তৃতীয় বারের মতন জিততেছেন। একটা মোটামুটি ফাংশনাল ডেমোক্রেসিতে একজন পপুলিস্ট পলিটিশিয়ানের এইরকমই অর্গানিক যাত্রা হওয়ার কথা।

আমি মমতার রাজনীতির গ্রাহক না, অবজার্ভার মাত্র। আই ডোন্ট লাইক অর ডিজলাইক হার বাট আই সার্টেইনলি এডমায়ারড হার স্ট্যান্ড এগেইন্সট এনআরসি। পশ্চিম বাংলায় বিজেপিকে যতদিন থামায়া রাখা যায়, ততদিনই বোনাস। মমতা ছাড়া কারো আনফরচুনেইটলি সেই ক্ষমতা নাই আর। আমরা জানি আপনার কিছু অবলিগেশন আছে কিন্তু এইবার তিস্তা নিয়া একটু উদার হোন দিদি, উই লাইক ইউ বাট উই উইল স্টার্ট টু লাভ ইউ দেন।

আর আমার মতন মিসকিনেরা, তোমাদের বলতেছি, ওরা কিন্তুক ভোট দেয় রেগুলার, শুধু তোমরা আর রোহিঙ্গারা পারোনা। তো, তোমরা আর কতকাল আরেক দেশের ভোট দেইখা দেইখা লোল ফেলবা?

লেখকঃ অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী অনলাইন এক্টিভিস্ট

- Advertisement -

আরও লেখা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

four − two =

- Advertisement -

সাম্প্রতিক লেখা