29 C
Dhaka
শনিবার, জুলাই ৩১, ২০২১

পলাশীর ষড়যন্ত্রকারীদের শেষ পরিণতি

যা পড়তে পারেন

:: হুমায়ূন কবির ::

১৭৫৬ সালে মাত্র ২২ বছর বয়সে বাংলার নবাব হন সিরাজউদ্দৌলা। নবাব হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়। সিরাজের বড় খালা ঘসেটি বেগম, প্রধান সেনাপতি মীর জাফর আলী খানের মতো ঘনিষ্ঠ জনেরা পলাশীর যুদ্ধের মূল চক্রান্তকারী। এ সময় নানা কারণে নবাবের সাথে ইংরেজ বণিকদের বিরোধ দেখা দেয়। ইংরেজদের সাথে নবাব বিরোধী শক্তিগুলো একজোট হয়ে ষড়যন্ত্রে যোগ দেয়। এরই ফলশ্রুতিতে ২৩ জুন ১৭৫৭ সালে পলাশীর প্রান্তরে নবাবের সৈন্যদের সাথে ইংরেজদের যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে প্রধান সেনাপতি মীর জাফরের বিশ্বাসঘাতকতায় নবাব সিরাজউদ্দৌলা পরাজিত ও নিহত হন।


ইংরেজদের ষড়যন্ত্র ও সেনাপতি মীরজাফরের বিশ্বাসঘাতকতায় ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন নবাব সিরাজউদ্দৌলা বাংলার সিংহাসনচ্যুত হন। নবাব সিরাজউদ্দৌলার সঙ্গে যারা ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিলেন, তাদের করুণ পরিণতি বরণ করতে হয়। মীরজাফর খ্যাত হতে চেয়েছিলেন ‘মহবত্ জং’ নামে। কিন্তু তার পরিচিতি ছড়িয়ে পড়ে ‘ক্লাইভের গাধা’ হিসেবে। রাজকার্যে বীতশ্রদ্ধ হয়ে ভাং সেবন করে তিনি টাল হয়ে থাকতেন। 


১। মসনদচ্যুত হওয়ার পর মীরজাফর মারা যায় কুষ্ঠরোগের শিকার হয়ে। 

২। লর্ড ক্লাইভ নিজের হাতে ক্ষুর চালিয়ে আত্মহত্যা করে। 

৩। বুড়িগঙ্গার জলে ডুবিয়ে হত্যা করা হয়েছিল ঘসেটি বেগমকে। 

৪। মীরজাফরের ছেলে মীরনের মৃত্যু হয়েছিল ইংরেজদের নির্দেশে ।

৫। সিরাজের হত্যাকারী মুহাম্মদী বেগ পাগল হয়ে কূপে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছিল।

৬। জগতশেঠকে অত্যুচ্চ দুর্গশিখর থেকে গঙ্গারগর্ভে নিক্ষেপ করে হত্যা করা হয়েছিল।

৭। মীর কাসেম অত্যন্ত হীন অবস্থায় অজ্ঞাতবাসের শেষে নিকৃষ্টভাবে মৃত্যুবরন করে।


 মীর জাফর

পলাশী ষড়যন্ত্রের অন্যতম প্রধান নায়ক ছিলেন মীরজাফর আলি খান। তিনি পবিত্র কোরআন মাথায় রাখিয়া নবাব সিরাজের সামনে তাহার পাশে থাকিবেন বলিয়া অঙ্গীকার করিবার পর পরই বেঈমানী করিয়াছিলেন। তিনি ছিলেন সকল ষড়যন্ত্রের মূলে।   মীর জাফর অত্যন্ত হীনাবস্থায় প্রথমত আলীবর্দী খাঁর সংসারে প্রতিপালিত হন। আলীবর্দী খান তাহাকে অত্যন্ত কাছে টানিয়া নিয়াছিলেন। পরে নবাব নিজে বৈমাত্রেয় ভাগিনী শাহ খানমের সহিত মীর জাফরের বিয়ে দেন। নবাব তাহার কার্যদক্ষতায় সন্তুষ্ট হইয়া তাহাকে সেনাপতি পদ প্রদান করেন। নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন, ‘মীরজাফর মহারাষ্ট্রীয় যুদ্ধের সময়ে অসামান্য বীর্যবত্তা দেখাইয়া আপনার সুনাম প্রচার করিয়াছিলেন কিন্তু আলীবর্দীর ভ্রাতৃজামাতা আতাউল্লা খাঁর সহিত পরামর্শ করিয়া বঙ্গরাজ্য বিভাগ করিয়া লইবার ইচ্ছা করায়, আলীবর্দী খাঁর অনুরোধে তাহাকে পুনর্বার সেনাপতি পদে নিযুক্ত করিয়াছিলেন। তাহার পর সিরাজের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের নেতা হইয়া মীরজাফর ইংরেজদের সহিত যোগদানপূর্বক সিরাজের সর্বনাশ সাধনের পর মুর্শিদাবাদের মসনদে উপবিষ্ট হন।’ মীরজাফর সম্পর্কে অনেকে বলিয়াছেন, ‘আর বিশ্বাসঘাতক মীরজাফর? সর্বস্বীকৃতভাবে তিনি ছিলেন পুরোপুরিভাবেই একজন বিশ্বাসঘাতক। সকল দৃষ্টিকোণ থেকেই তিনি ছিলেন একজন মহাবোকা, রাজনীতি জ্ঞানবিহীন একজন সেনাপতিমাত্র।  মীরজাফরের মৃত্যু হয় অত্যন্ত মর্মান্তিকভাবে। তিনি দুরারোগ্য কুষ্ঠব্যাধিতে আক্রান্ত হইয়া মৃত্যুবরণ করেন। নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন, ক্রমে অন্তিম সময় উপস্থিত হইলে, হিজরি ১১৭৮ অব্দের ১৪ শাবান (১৭৬৫ খ্রি. অব্দের জানুয়ারি মাসে) বৃহস্পতিবার তিনি কুষ্ঠরোগে ৭৪ বছর বয়সে পরলোকগত হন। তাহার মৃত্যুর পূর্বে নন্দকুমার কিরিটেশ্বরীর চরণামৃত আনাইয়া তাহার মুখে প্রদান করাইয়াছিলেন এবং তাহাই তাহার শেষ জলপান।


মিরন

মিরন পলাশী ষড়যন্ত্রের প্রধানতম নায়ক ছিল। তাহার পুরো নাম মীর মহম্মদ সাদেক আলি খান। সে মীর জাফরের জ্যেষ্ঠ পুত্র। আলীবর্দী খানের ভগ্নী শাহ খানমের গর্ভে তাহার জন্ম হইয়াছিল। এই সূত্রে মিরন ছিল আলিবর্দীর বোনপো। মিরন যে অত্যন্ত দুর্বৃত্ত, নৃশংস ও হীনচেতা ছিল, সে ব্যাপারে কাহারও কোনো সন্দেহ নাই। সিরাজ হত্যাকাণ্ডের মূল নায়ক মিরন। আমিনা বেগম, ঘষেটি বেগম হত্যার নায়কও তিনি। লুত্ফুন্নিসার লাঞ্ছনার কারণও মিরন। মির্জা মেহেদীকেও নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করিয়াছিল মিরন। মীর জাফরের সকল অপকর্মের হোতা ছিল সে। মিরনের প্ররোচনাতেই মীরজাফর চলিতেন।  ইংরেজদের নির্দেশে এই মিরনকে হত্যা করিয়াছে মেজর ওয়ালস। তবে তাহার এই মৃত্যুর ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য ইংরেজরা মিথ্যা গল্প বানাইয়াছিল। তাহারা বলিয়াছে, মিরন বিহারে শাহজাদা আলি গওহারের (পরে বাদশা শাহ আলম) সঙ্গে যুদ্ধ করিতে গিয়া পথের মধ্যে বজ্রাঘাতে নিহত হন। ইংরেজদের অর্থপুষ্ট মুতাক্ষরীনকার লিখিয়াছেন, মিরনের আদেশে সিরাজের মাতা আমিনা ও মাতৃস্বসা ঘষেটি বেগম জলমগ্ন হওয়ায়, তাহার মৃত্যুকালে মিরনকে বজ্রাঘাতে প্রাণপরিত্যাগের জন্য অভিসম্পাত করিয়া যান। এই জন্য অনুমান করা হয় যে, বজ্রাঘাতেই মিরনের মৃত্যু হইয়াছিল। ইংরেজরা বলিয়াছে, বজ্রপাতের ফলে তাঁবুতে আগুন ধরিয়া যায় এবং তাহাতেই তিনি নিহত হন। ফরাসী সেনাপতি লরিস্টনের Jean- ঘটনাকে অস্বীকার করিয়াছেন। বরং এই মত পোষণ করেন যে, মিরনকে আততায়ীর দ্বারা হত্যা করা হইয়াছিল। প্রচণ্ড ঝড় আর ঘন ঘন বজ্রপাতের সময় তাহার তাঁবুতে আগুন লাগাইয়া দেওয়া হয় এবং তাহাকে হত্যা করা হয়। এহা আর কিছুই নহে, আসলে ঘটনাকে চাপা দেওয়ার একটা কৌশল মাত্র। (অক্সফোর্ড হিস্ট্রি অফ ইন্ডিয়া, ভিনসেন্ট এ, স্মিথ।) নিখিলনাথ রায় তাহার ‘মুর্শিদাবাদ কাহিনী’ গ্রন্থে উল্লেখ করিয়াছেন, ‘মিরনের মনে স্বাধীনতার ইচ্ছা বলবর্তী হওয়ার পুণ্যশ্লোক ব্রিটিশ পুঙ্গবদের মীর কাসিমের সাহায্যে তাহাকে না-কি কৌশলপূর্বক নিহত করিয়াছিলেন। পরে বজ্রাঘাতে মৃত্যু বলিয়া প্রকাশ করা হয়।’ ভিনসেন্ট এ, স্মিথ তাহার অক্সফোর্ড হিস্ট্রি অফ ইন্ডিয়া ও Meadows Taylor তাহার A students Manual of the History of India গ্রন্থে এ প্রসঙ্গে পরিষ্কার বক্তব্য উপস্থাপন করিয়াছেন। তিনি বলিয়াছেন যে, মিরনের মৃত্যুর জন্য ইংরেজ এবং মীর কাসিম উভয়কেই সন্দেহ করা হয়। আসলেই মিরনকে হত্যা করা হইয়াছিল। মেজর ওয়ালস ছিলেন এই হত্যাকাণ্ডের নায়ক। মীরজাফর ইংরেজদের সাজানো গল্পটি বিশ্বাস করেন নাই। তিনি জানিতেন, মিরনকে ইংরেজরা হত্যা করিয়াছে। কিন্তু কাপুরুষ মীরজাফরের ক্রন্দন ছাড়া আর কিছু করিবার ছিল না। এ নিয়া বাড়াবাড়ি করিলে তিনি জানিতেন তাহার নিজের নবাবী ও জীবনটাও চলিয়া যাইতে পারে।   

মুহাম্মদী বেগ

মুহাম্মদী বেগ ৩ জুলাই বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে নির্মমভাবে হত্যা করিয়াছিল। নবাব সিরাজ এ সময় তাহার কাছে প্রাণ ভিক্ষা চাহেন নাই। তিনি কেবল তাহার কাছ থেকে দুই রাকাত নামাজ পড়িবার অনুমতি চাহিয়াছিলেন। কিন্তু কুখ্যাত মুহাম্মদী বেগ সেই সুযোগ প্রত্যাখ্যান করিবার পরপরই নবাব সিরাজকে নির্মমভাবে হত্যা করে।  পরবর্তী পর্যায়ে মুহাম্মদী বেগ মাথা গড়বড় অবস্থায় বিনা কারণে কূপে ঝাঁপাইয়া পড়িয়া মৃত্যুবরণ করিয়াছিল। এই মুহাম্মদী বেগ সিরাজউদ্দৌলার পিতা ও মাতামহীর অন্নে প্রতিপালিত হয়। আলীবর্দীর বেগম একটি অনাথ কুমারীর সহিত তাহার বিবাহ দিয়াছিলেন।   

জগতশেঠ মহাতপচাঁদ এবং মহারাজা স্বরূপচাঁদ

পলাশী ষড়যন্ত্রের পিছনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখিয়াছিল জগতশেঠ পরিবার, প্রথমত তাহারা ইংরেজদের সহিত ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় এবং পরে মীরজাফর ও অন্যদের ইহাতে যুক্ত করেন। জগতশেঠের পূর্বপুরুষ মানিকচাঁদের সঙ্গে মুর্শিদকুলী খাঁর বংশের ভালো সম্পর্ক ছিল। মানিকচাঁদ ১৭১৫ সালে বাদশাহ ফরখ শেরের কাছ হইতে শেঠ উপাধি লাভ করেন। ১৭২২ সালে মানিকচাঁদ পরলোকগমন করেন। তিনি অপুত্রদকে উত্তরাধিকারী মনোনীত করিয়া যান। ১৭৪৪ সালে ফতেচাঁদের মৃত্যু হয়। আনন্দচাঁদ, দয়াচাঁদ, মায়াচাঁদ নামে তাহার তিন ছেলে ছিল। পিতার জীবদ্দশাতেই আনন্দচাঁদ ও দয়াচাঁদের মৃত্যু ঘটে। তখন আনন্দচাঁদের পুত্র স্বরূপচাঁদ শেঠ পরিবারের উত্তরাধিকারী মনোনীত হন। নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন, বাদশাহের নিকট হইতে মহাতপচাঁদ জগতশেঠ’ ও স্বরূপচাঁদ মহারাজ উপাধি লাভ করেন। এই সময়ে শেঠদিগের গদীতে অনবরত ১০ কোটি টাকার কারবার চলিত। জমিদার মহাজন ও অন্যান্য ব্যবসায়ী সকলেই অর্থের জন্য শেঠদিগের নিকট উপস্থিত হইতেন। ইংরেজ, ফরাসী প্রভৃতি বৈদেশিক বণিকগণ তাহাদের নিকট হইতে টাকা কর্জ লইতেন। ফতেচাঁদের মৃত্যুর পর নবাব আলীবর্দী ও খাঁ জগতশেঠ মহাতপচাঁদকে যথেষ্ট সম্মান করিতেন এবং ফতেচাঁদের ন্যায় তাহারও পরামর্শ গ্রহণ করিতে ত্রুটি করিতেন না।’ আলীবর্দী খাঁর শাসনামলেই জগতশেঠ সহিত ইংরেজদের সম্পর্ক অতি গভীর ছিল। নবাব সিরাজ ক্ষমতায় আসিলে এই গভীরতা বৃদ্ধি পাইল এবং তাহা ষড়যন্ত্রে রূপ নিল। পলাশী বিপর্যয়ের পর জগতশেঠ রাজকোষ লুণ্ঠনে অংশগ্রহণ করেন।  ১৭৬০ সালে মীরজাফর সিংহাসনচ্যুত হইলে তাহার জামাতা কাসেম আলি খাঁ (মীর কাসেম) ক্ষমতায় বসেন। এ সময় বিভিন্ন বিষয় লইয়া ইংরেজদের সহিত তাহার বিরোধ বাধে। জগতশেঠ ইংরেজদের পক্ষ অবলম্বন করেন এবং তিনি ইংরেজ ও মীরজাফরের কাছে মীর কাসেমের বিরুদ্ধে কয়েকটি পত্র প্রদান করেন। পত্রগুলি কৌশলে মীর কাসেমের হস্তগত হয়। এই জন্য মীর কাসেম জগতশেঠ মহাতপচাঁদকে বন্দী করিয়া মুঙ্গেরে পাঠাইবার জন্য বীরভূমের ফৌজদার মহাম্মদ তকী খাঁর প্রতি আদেশ পাঠান। তকী খাঁ তাহাদেরকে হীরাঝিলের প্রাসাদে বন্দি করিয়া রাখেন। পরে নবাবের সেনাপতি আর্মেনীয় মার্কার নবাবের আদেশে সসৈন্যে তাহাদের নিয়া উপস্থিত হইলে তকী খাঁ তাহাদের মার্কারের হস্তে সমর্পণ করেন। এ সময়ে মীর কাসেম মুঙ্গেরে ছিলেন। মার্কার তাহাদের নিয়া মুঙ্গেরে উপস্থিত হন। তাহাদের সেখানে আটক রাখা হয়। ইংরেজ গভর্নর ২৪ এপ্রিল ১৭৬৩ নবাবকে লিখিয়া পাঠাইলেন, ‘আমি এইমাত্র আমিয়টের পত্রে অবগত হইলাম যে, মহম্মদ তকী খাঁ রজনীতে জগতশেঠ ও স্বরূপচাঁদের বাটীতে প্রবেশ করিয়া, তাহাদিগকে বন্দী অবস্থায় হীরাঝিলে আনিয়ে রাখিয়াছে। এই ঘটনায় আমি অত্যন্ত আশ্চর্যান্বিত হইয়াছি। যখন আপনি শাসন কার্যের ভার গ্রহণ করেন, তখন আপনি, জগতশেঠ ও আমি সমবেত হইয়া, এইরূপ প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হইয়াছিলাম যে, শেঠেরা, বংশমর্যাদায় দেশের মধ্যে সর্বপ্রধান, অতএব শাসনকার্যের বন্দোবস্তে আপনাকে তাহাদিগের সাহায্য গ্রহণ করিতে হইবে এবং তাহাদিগের কোনোরূপ অনিষ্ট না করিতে আপনি স্বীকৃত হন। মুঙ্গেরে আপনার সহিত সাক্ষাত্কালে আমি শেঠদিগের কথা আপনাকে বলিয়াছিলাম এবং আপনিও তাহাদিগের কোনো ক্ষতি করিবেন না বলিয়া আমাকে নিশ্চিত করেন। তাহাদিগের তত্পরোনাস্তি অবমাননা করা হইয়াছে। আপনার এ সুনামে কলঙ্ক পড়িয়াছে। ভূতপূর্ব কোনো নাজিম তাহাদিগের এরূপ গৃহ হইতে আনয়ন করা অত্যন্ত অন্যায় হইয়াছে; ইহাতে তাহাদিগের প্রতি এরূপ ব্যবহার করেন নাই। সুতরাং আপনি সৈয়দ মহম্মদ খাঁ বাহাদুরকে (মুর্শিবাদের ফৌজদার) তাহাদিগের মুক্তির জন্য লিখিয়া পাঠাইবেন।’  নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন ‘ইহার পর ক্রমে ইংরেজদিগের সহিত মীর কাসেমের বিবাদ গুরুতর হইয়া উঠিলে, নবাব কাটোয়া, গিরিয়া, উদয়ানালা প্রভৃতি স্থানে পরাজিত হইয়া মুঙ্গেরে জগতশেঠ ও অন্যান্য বন্দী কর্মচারী এবং রাজা ও জমিদারদিগের বিনাশ সাধন করেন। জগতশেঠ মহাতপচাঁদকে অত্যুচ্চ দুর্গশিখর হইতে গঙ্গারগর্ভে নিক্ষেপ করা হয়। মহারাজ স্বরূপচাঁদও ঐ সাথে ইহজীবনের লীলা শেষ করিতে বাধ্য। মুতাক্ষরীণের অনুবাদক লিখিয়াছেন, ‘চুনী নামক জগতশেঠ জনৈক ভৃত্য প্রভুর সহিত একত্রবদ্ধ হইয়া জলমগ্ন হইতে অথবা তাহার পূর্বে প্রাণ বিসর্জন করিবার জন্য অশেষ প্রকার অনুনয় বিনয় করিতে থাকে। কিন্তু তাহার প্রার্থনা পূর্ণ করা হয় নাই। অবশেষে সে নিজেই দুর্গশিখর হইতে পতিত হয়। জগতশেঠ তাহাকে নিরস্ত হইবার জন্য অতিশয় অনুনয় বিনয় করিয়াছিলেন; কিন্তু তিনি তাহার কথায় মনোযোগ দেন নাই।’ জানা যায়, অনুবাদক বাবুরাম নামে চুনীর জনৈক আত্মীয়ের কাছ থেকে এই সংবাদ অবগত হন।   

রবার্ট ক্লাইভ

নবাব সিরাজবিরোধী ষড়যন্ত্রের অন্যতম প্রধান ব্যক্তিত্ব ছিলেন রবার্ট ক্লাইভ। ক্লাইভ খুব অল্প বয়সে ভারতে আসেন। প্রথমে তিনি একটি ইংরেজ বাণিজ্য কেন্দ্রে গুদামের দায়িত্বে নিযুক্ত হন। এই কাজটি ছিল অত্যন্ত পরিশ্রমের ও বিরক্তিকর। এই কাজটিতে ক্লাইভ মোটেও সন্তুষ্ট ছিলেন না। এ সময় জীবনের প্রতি তাহার বিতৃষ্ণা ও হতাশা জন্মে। তিনি আত্মহত্যা করিবার চেষ্টা করেন। তিনি রিভলবার দিয়া নিজের কপালের দিকে লক্ষ্য করিয়া পর পর তিনটি গুলি ছোঁড়েন। কিন্তু গুলি থাকা অবস্থাতেইও গুলি রিভলবার হইতে বাহির হয় নাই। পরে তিনি ভাবিলেন ঈশ্বর হয়ত তাহাকে দিয়া বড় কোনো কাজ সম্পাদন করিবেন বলিয়াই এইভাবে তাহাকে বাঁচাইলেন। পরবর্তীতে দ্রুত তিনি ক্ষমতার শিখরে উঠিতে শুরু করেন। পরিশেষে পলাশী ষড়যন্ত্রে নেতৃত্ব দিয়া তিনি কোটি টাকার মালিক হন। ইংরেজরা তাহাকে ‘প্লাসি হিরো’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। তিনি দেশে ফিরিয়া গিয়া একদিন বিনা কারণে বাথরুমে ঢুকিয়া নিজের গলায় নিজের হাতেই ক্ষুর চালাইয়া মৃত্যুমুখে পতিত হন।  ইয়ার লতিফ খানঃপলাশী ষড়যন্ত্রের শুরুতে ষড়যন্ত্রকারীরা ইয়ার লতিফ খানকে ক্ষমতার মসনদে বসাইতে চাহিয়াছিলেন। কিন্তু পরে এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করিয়া এক্ষেত্রে মীরজাফরের নাম উচ্চারিত হয়। ইয়ার লতিফ খান ছিলেন নবাব সিরাজের একজন সেনাপতি। তিনি এই ষড়যন্ত্রের সহিত গভীরভাবে যুক্ত ছিলেন এবং যুদ্ধের মাঠে তাহার বাহিনী মীরজাফর, রায় দুর্লভের বাহিনীর ন্যায় ছবির মতো দাঁড়াইয়াছিল। তাহার সম্পর্কে জানা যায়, তিনি যুদ্ধের পর অকস্মাত্ নিরুদ্দিষ্ট হইয়া যান। অনেকের ধারণা, তাহাকে কে বা কাহারা গোপনে হত্যা করিয়াছিল। (মুসলিম আমলে বাংলার শাসনকর্তা, আসকার ইবনে শাইখ, পরিশিষ্ট)। 

মহারাজা নন্দকুমার

মহারাজা নন্দকুমার এই ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে অগ্রণী ভূমিকা পালন করিয়াছিলেন। মুর্শিবাদাবাদ কাহিনী গ্রন্থে নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন নন্দকুমারের অনেক বিবেচনার পর সিরাজের ভবিষ্যত্ বাস্তবিকই ঘোরতর অন্ধকার দেখিয়া, ইংরেজদিগের সহিত বন্ধুত্ব স্থাপনের ইচ্ছা করিলেন। ইংরেজ ঐতিহাসিকগণ বলিয়া থাকেন যে, ইংরেজরা সেই সময়ে আমীরচাঁদকে দিয়া নন্দকুমারকে ১২ হাজার টাকা প্রদান করিয়াছিলেন। পলাশী ষড়যন্ত্রের পর নন্দকুমারকে মীরজাফর স্বীয় দেওয়ান নিযুক্ত করিয়া সব সময় তাহাকে নিজ কাছে রাখিতেন। মীরজাফর তাহার শেষ জীবনে যাবতীয় কাজকর্ম নন্দকুমারের পরামর্শানুসারে করিতেন। তাহার অন্তিম শয্যায় নন্দকুমারই তাহার মুখে কিরীটেশ্বরীর চরণামৃত তুলিয়া দিয়াছিলেন। তহবিল তছরুপ ও অন্যান্য অভিযোগের বিচারে নন্দকুমারের ফাঁসিকাষ্ঠে মৃত্যু হইয়াছিল। বিচার সম্পর্কে নিখিলনাথ রায় লিখিয়াছেন, ‘প্রধান বিচারপতি জুরীদিগকে চার্জ বুঝাইয়া দেওয়ার পূর্বে মহারাজের কৌঁসুলি ফ্যারার সাহেব জুরিদিগকে লক্ষ্য করিয়া কিছু বলিতে ইচ্ছা করিয়াছিলেন। ইংল্যান্ডীয় আইনে গুরুতর অপরাধীদিগের কৌঁসুলি আইন সংক্রান্ত কোনো কথা ব্যতীত আর কিছু বলিতে পারেন না বলিয়া তাহার আবেদন অগ্রাহ্য করা হয়।… অতঃপর জুরিরা প্রায় একঘণ্টা পরামর্শ করিয়া, মহারাজ নন্দকুমারকে দোষী বলিয়াই প্রকাশ করিলেন। তজ্জন্য তত্কালের নিয়মানুসারে ১৬ই জুন মহারাজ নন্দকুমারের প্রাণদণ্ডের আদেশ প্রদান করা হয়। প্রাণদণ্ডের আদেশ প্রদত্ত মহারাজ নন্দকুমারকে কারাগারের আশ্রয় গ্রহণ করিতে হইল। কারাগারের একটি দ্বিতল গৃহ তাহার আবাসস্থানরূপে নির্দিষ্ট হইয়াছিল। সে গৃহে আর কেহ থাকিত না; তথায় মহারাজ বন্ধুবান্ধবগণের সহিত কথোপকথনে ও শাস্ত্রালাপে মৃত্যু সময় পর্যন্ত অতিবাহিত করিয়াছিলেন।  রায় দুর্লভঃরায় দুর্লভ ছিলেন নবাবের একজন সেনাপতি। তিনিও মীরজাফরদের সহিত ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিলেন। যুদ্ধকালে তিনি এবং তাহার বাহিনী মীরজাফরদের সহিত যুক্ত হইয়া নীরবে দাঁড়াইয়াছিলেন। যুদ্ধের পর তিনি কারাগারে নিক্ষিপ্ত হন এবং ভগ্নস্বাস্থ্য লইয়া সেখানেই তাহার মৃত্যু ঘটে।  

উমিচাঁদ

ক্লাইভ কর্তৃক উমিচাঁদ প্রতারিত হইয়াছিলেন। ইয়ার লতিফ খান ছিলেন উমিচাঁদের মনোনীত প্রার্থী। কিন্তু যখন অন্যান্য ষড়যন্ত্রকারীরা এ ক্ষেত্রে মীরজাফরের নাম ঘোষণা করিলেন, তখন উমিচাঁদ বাঁকিয়া বসিলেন এবং বলিলেন, আপনাদের প্রস্তাব মানিতে পারি এক শর্তে, তাহা হইল যুদ্ধের পর নবাবের রাজকোষের ৫ ভাগ সম্পদ আমাকে দিতে হইবে। ক্লাইভ তাহার প্রস্তাব মানিলেন বটে, কিন্তু যুদ্ধের পরে তাহাকে তাহা দেওয়া হয় নাই। যদিও এই ব্যাপারে একটি মিথ্যা চুক্তি হইয়াছিল। ওয়াটস রমণী সাজিয়া মীরজাফরের বাড়িতে গিয়া লাল ও সাদা কাগজে দুইটি চুক্তিতে তাহার সই করান। লাল কাগজের চুক্তিতে বলা হইয়াছে, নবাবের কোষাগারের পাঁচ শতাংশ উমিচাঁদের প্রাপ্য হইবে। ইহা ছিল নিছক প্রবঞ্চনামাত্র। যাহাতে করিয়া উমিচাঁদের মুখ বন্ধ থাকে। যুদ্ধের পর ক্লাইভ তাহাকে সরাসরি বলেন, আপনাকে কিছু দিতে পারিব না। এ কথা শুনিয়া তিনি মানসিক ভারসাম্য হারাইয়া ফেলিলেন এবং স্মৃতিভ্রংশ উন্মাদ অবস্থায় রাস্তায় রাস্তায় ঘুরিতে ঘুরিতেই তাহার মৃত্যু ঘটে।  

রাজা রাজবল্লভ

ষড়যন্ত্রকারী রাজা রাজবল্লভের মৃত্যুও মর্মান্তিকভাবে ঘটিয়াছিল। জানা যায়, রাজা রাজবল্লভের কীর্তিনাশ করিয়াই পদ্মা হয় কীর্তিনাশা।  দানিশ শাহ বা দানা শাহঃদানিশ শাহ সম্পর্কে বিতর্ক রহিয়াছে। অনেকে বলিয়াছেন, এই দানিশ শাহ নবাব সিরাজকে ধরাইয়া দিয়াছিলেন। অক্ষয়কুমার মৈত্রেয় লিখিয়াছেন, দানা শাহ ফকির মোটেই জীবিত ছিলেন না। আসকার ইবনে শাইখ তাহার ‘মুসলিম আমলে বাংলার শাসনকর্তা’ গ্রন্থে লিখিয়াছেন, বিষাক্ত সর্প দংশনে দানিশ শাহর মৃত্যু ঘটিয়াছিল।  ওয়াটসঃওয়াটস এই ষড়যন্ত্রের নেপথ্যে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখিয়াছিলেন। তিনি রমণী সাজিয়া মীরজাফরের বাড়িতে যাইয়া চুক্তিতে মীরজাফরের স্বাক্ষর আনিয়াছিলেন। যুদ্ধের পর কোম্পানির কাজ হইতে বরখাস্ত হইয়া মনের দুঃখে ও অনুশোচনায় বিলাতেই অকস্মাত্ মৃত্যুমুখে পতিত হন। স্ক্রাফটনঃষড়যন্ত্রের পিছনে স্ক্রাফটনও বিশেষভাবে কাজ করিয়াছিলেন। জানা যায়, বাংলার বিপুল সম্পদ লুণ্ঠন করিয়া বিলেতে যাইবার সময় জাহাজডুবিতে তাহার অকাল মৃত্যু ঘটে।  ওয়াটসনঃ ষড়যন্ত্রকারী ওয়াটসন ক্রমাগত ভগ্নস্বাস্থ্য হইলে কোনো ওষুধেই ফল না পাইয়া কলিকাতাতেই করুণ মৃত্যুর মুখোমুখি হন।  মীর কাসেমঃমীরজাফরের ভাই রাজমহলের ফৌজদার মীর দাউদের নির্দেশে মীর কাসেম নবাব সিরাজের খবর পাইয়া ভগবানগোলাঘাট হইতে বাঁধিয়া আনিয়াছিলেন মুর্শিদাবাদে। পরে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে তিনি নবাব হন এবং এ সময় ইংরেজদের সহিত তাহার বিরোধ বাধে ও কয়েকটি যুদ্ধে পরাজিত হন। পরে ইংরেজদের ভয়ে হীনবেশে পলাইয়া যান এবং রাস্তায় রাস্তায় ঘুরিয়া বেড়ান। অবশেষে অজ্ঞাতনামা হইয়া দিল্লীতে তাহার করুণ মৃত্যু ঘটে। মৃতের শিয়রে পড়িয়া থাকা একটা পোঁটলায় পাওয়া যায় নবাব মীর কাসেম হিসেবে ব্যবহৃত চাপকান। এ থেকেই জানা যায় মৃত ব্যক্তি বাংলার ভূতপূর্ব নবাব মীর কাসেম আলী খান।

- Advertisement -

আরও লেখা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

sixteen + 5 =

- Advertisement -

সাম্প্রতিক লেখা