30 C
Dhaka
বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১

সরকার দেশে ভয়ের সংস্কৃতি চালু করেছে

যা পড়তে পারেন

:: মুজতবা খন্দকার ::

ত্ব-হা ফিরে এসেছে। খবরটা স্বস্তির, অাবার অস্বস্তিরও বটে। অস্বস্তি হচ্ছে, তার ফিরে অাসাটা স্বেচ্ছায়,না কি সরকারের মেশিনারিজদের দয়া সেটা নিশ্চিত করে বোঝা যাচ্ছেনা। তবে ইতিমধ্যে একটা তথ্য ইতিমধ্যে চাউর করা হয়ে গেছে,যে ত্ব-হা অাত্মগোপনে ছিলেন। এই অাত্মগোপন নিয়ে নানা প্রশ্নের উদ্রেক করছে। এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে তিনি তার সঙ্গিসহ অাত্মগোপন করে থাকলেন। ধরে নিলাম ত্ব-হার অাত্মগোপনের কোনো কারণ ঘটেছিলো। কিন্তু তার সঙ্গীদের অাত্মগোপনে যাবার কি এমন দরকার পড়লো। ত্বহা রেন্টে কারের গাড়ি নিয়ে ওয়াজ করে ফিরছিলেন। সেই ভাড়া করা গাড়ি চালকের কি এমন দায় পড়লো যে তাকে ত্বহার সাথে একইভাবে অাত্মগোপন করতে হবে।একটি স্বাধীন দেশের চারজন নাগরিক সপ্তাহেরও বেশী সময় ধরে লাপাত্ত্বা। তাকে নিয়ে সারাদেশের সংবেদনশীল মানুষ চিন্তিত। তার স্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে তাকে ফিরে দেয়ার অাকুতি জানালেন। সোশাল নানা ত্বহাকে নিয়ে নানারকম অালোচনা- সমালোচনা। কেউ কেউ যখন প্রমাদ গুনছেন। কেউ অাবার অাঙ্গুল তুলছেন গুম করা হলো না কি তাকে! তো তিনি যদি স্বেচ্ছায় অাত্মগোপন করতেন,তবে সেটা সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা তাদের স্বার্থেই তো তার অবস্থান পরিস্কার করে বলতে পারতো,তিনি কোথায় অাছেন। সব মহল যখন বিষয়টা নিয়ে ভাবছে। সেই সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকেও বলতে হলো,ত্বহার বিষয়টি সরকার গুরুত্বের সাথে নিয়েছে…নানামুখী অালোচনা্র ডালপালা যখন মেলছে। তখনই তার হঠাৎ করেই অার্বিভাব! এবং পুলিশের ঘটা করে বলা তিনি ব্যক্তিগত কারনে অাত্মগোপনে ছিলেন। কেন জানি অামার মেনে নিতে কুন্ঠা হচ্ছে। সংবাদকর্মী তো, তাই হুট করে কোনো গল্প বিশ্বাস করতে মন সায় দেয়না। অার যদি সে গল্পের প্লট যদি জমাট না হয় তাহলে তো অামার অন্তত কনভিন্স হবার কোনো কারন নেই।ত্বহা,অাত্মগোপনে ছিলেন। সত্যিই যদি অাত্মগোপনে তিনি থেকে থাকেন। তবে রংপুরের করিতকর্মা গোয়েন্দা পুলিশ নিজেরা সে কথা না বলে,তাকে কেন সাংবাদিকদের ফেস করতে দিলেন না। তিনি না হয়,বলতেন তিনি অাত্মগোপনে গিয়েছিলেন। এবং কেন হঠাৎ করে তার অাত্মগোপনে যাবার দরকার পড়লো? কেন তিনি নিজে অাত্মগোপনে গিয়ে সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেললেন.. তার কিছুই করা হলোনা। তার সঙ্গীদের ক্ষেত্রেও একই কথা বলতে পারি। তাহলে সরকারের মেশিনারিজ টুলসদের এই তথাকথিত অাত্মগোপনের গল্পটা কেন জানি বিশ্বাসযোগ্য মনে হচ্ছেনা। কারন অামরা অতীতে এরকম অনেক অাত্মগোপনের গল্প শুনেছি তো তাই! পরিবেশবাদী অাইনজীবী রিজওয়ানার স্বামীর অাত্মগোপনের কথাও অামরা স্মরণ করতে পারি। অার বিএনপি নেতা ইলিয়াস অালী তো সেই অাত্মগোপনে গেলেন, এত বছরেও তিনি ফিরলেননা। সুতরং অামরা তো ঘরপোড়া জাতি,সিঁধুরে মেঘ দেখলে অামাদের ভয় তো করবেই!এই সরকার তো গত দশ বছরে দেশে ভয়ের সংস্কৃতি চালু করেছে। এখন সত্য কথাটাও বলতে জনগন ভয় পায়.. পাছে.. তাকে অাবার না জানি নিরুদ্দিষ্ট হতে হয় কিনা। মাসখানেক অথবা পক্ষকাল পরে তিনি সিমান্তের ওপারে ভুলে চলে যান কিনা! এমন অবস্থা তো একদিনে তৈরী হয়নি… দেশ শাসন মানে দেশের মানুষকে শাসন বোঝে সরকার। বিশেষ করে যারা বেয়াড়া, সরকারের ক্রিটিক,সরকারের বন্ধু রাষ্ট্রের সমালোচক তাদের সাইজ করার জন্য, সরকারের ডিজিটাল নিরাপত্ত্বা অাইন, সন্ত্রাসবিরোধী অাইনগুলো কি করা হয়েছে এম্নি এম্নি।সেদিন অাওয়ামী সমর্থিত বুদ্ধিজীবী,ছফা ভাইয়ের একদা শিষ্য সলিমুল্লাহ খান,বললেন, এখন সরল,সত্য, অাপোষহীন, উচিৎ কথা বলতে গেলে বুক কাপে.. সরকারের কারো কারো চেহারা না কি তার সামনে ভেসে ওঠে।শুরু করেছিলাম, ত্বহার কথা দিয়ে। ত্বহা তো এসলামের নানা বিষয় নিয়ে কথা বলতেন,তিনি ইযরাইল,হিন্দুস্থানের মুসলিম অাগ্রাসনের নিন্দা করতেন। যৌক্তিকভাবে তার বক্তব্য তিনি প্রকাশ করতেন,সেটা কার পক্ষে গেলো অার কার গেলোনা,সেটা নিয়ে পরোয়া করতেননা। তার এই ভূমিকা অামাকে বেশ টানতো! তার সব কিছু অামার অাপনার ভাললাগবে এমনটা ভাবার কোনো কারন নেই। তাই বলে, তার মুক্তমতামত প্রকাশ করতে অাপরি দেবেননা.. তাহলে দেশে কি ভয়ের সংস্কৃতি নেই! ভলটেয়ারের সেই অমর উক্তি অামি মানি। কিন্তু যারা মতপ্রকাশের স্বাথীনতায় বিশ্বাস করে না। সংবাদপত্রের কন্ঠরোধ করা যাদের ঐতিহ্য.. সেই ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার সরকার ত্বহার ব্ক্তব্যকে ভালো চোখে দেখবে..! এটা ভাবি কি করে?সরকার এই পার্লামেন্টে এমন অাইন করেছে যে,জনগনের কারো কথায় সরকারের কোনো বন্ধু রাষ্ট্রের সাথে সম্পর্কের অবনতি হয়,এমন কিছু কোন নাগরিক বলতে পারবেনা। বললে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হবে।কি চমৎকার অাইন!অাষাঢ় মাস দুদিন অাগে শুরু হয়েছে। সেটা মনে রেখেই কিনা.. ত্বহা সম্পর্কে অাষাঢ়ে গল্প শুনলাম অাজ। শুনবোনাইবা কেন বৃষ্টিটাওটা যে সেটা উস্কে দিয়েছে..!

- Advertisement -
পূর্ববর্তী নিবন্ধচা উপাখ্যান
পরবর্তী নিবন্ধজেমস বন্ডের হ্যান্ডগান

আরও লেখা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

three × two =

- Advertisement -

সাম্প্রতিক লেখা