28 C
Dhaka
মঙ্গলবার, জুন ২২, ২০২১

বড় বিনিয়োগেও সাফল্যহীন চেলসি; চাকরি নিয়ে শঙ্কায় ল্যাম্পার্ড

যা পড়তে পারেন

:: খেলা ডেস্ক ::

ক্লাবের কিংবদন্তি মিডফিল্ডার ল্যাম্পার্ড চেলসির কোচ হয়ে আসার পর আশায় বুক বেঁধেছিলেন সমর্থকরা। তারা ভেবেছিলেন এবার বুঝি অলব্লুজদের দু:সময় কাঁটলো। এর আগে অ্যান্তেনীয় কন্তে, মারিও সারি আর ইউরোপের অন্যতম সফল কোচ হোসে মোরিনহো চেলসির ডাগআউটে দাঁড়িয়ে ইউরোপের অন্যতম সফল ক্লাবটির ভাগ্য ফেরাতে পারেননি। প্রিমিয়ার লীগ জেতাতে তো পরের কথা। সেরা তিনেও থাকতে দলটিকে ধুকতে হয়েছে। আর তাই ল্যাম্পার্ড ছিলেন সমর্থকদের কাছে আশা জাগানিয়া নাম। প্রথম মওসুমে (২০১৯-২০) তারকাবিহীন একটি দল নিয়ে যেভাবে ম্যানচেষ্টার সিটি, লিভারপুলের মতন তারকা সমৃদ্ধ দলের বিরুদ্ধে বুক চিতিয়ে লড়েছিলো, তা দেখে মনে হয়েছিলো, আরো কিছু ভালো খেলোয়াড় পেলে হয়তো চেলসির সুদিন ফেরাতে পারবেন ল্যাম্পার্ড।

রুশ ধনকুবের রোমান আব্রামোভিচের শিরোপা ক্ষুধার কথা কে না জানে। তার কাছে সাফল্যর মূল কথা হচ্ছে বেশী বেশী শিরোপা। আর সেজন্য তিনি কাড়ি কাড়ি ইউরো খরচ করতে কুন্ঠিত হননা।

চলতি বছর ও বিগত বছরের করোনা অতিমারীর মধ্যে ইউরোপের বড় বড় দল যখন ব্যয় সংকোচনের নীতিতে চলছিলো, নতুন নতুন খেলোয়াড় কে না তো দুরের কথা, বার্সেলোনার মতন ক্লাব যখন খেলোয়াড়দের বেতন পর্যন্ত কমাচ্ছিলো। ঠিক সেই সময়ে অন্য দলগুলো যেখানে দলবদলের জন্য হাত খুলে খরচ করার সাহস পায়নি, সেখানে নতুন মওসুমের দলবদলের বাজারে ২৫ কোটি পাউন্ড খরচ করেছে।

কিনে এনেছে হাকিম জিয়েশ, টিমো ভের্নার, কাই হাভার্টজ, বেন চিলওয়েল, এদুয়ার্দ মেন্দিকে।মুফতে এসেছেন থিয়াগো সিলভা। কিন্তু লিগে সেই বিনিয়োগের প্রতিফল কই?

প্রিমিয়ার লিগে বড় দলগুলোর সঙ্গে এখনো কোনো মনে রাখার মতো পারফরম্যান্স নেই তাদের।

১৭ ম্যাচে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগের পয়েন্ট তালিকায় ৯ নম্বরে আছে চেলসি। খুব দ্রুত  অবস্থা বদলাতে না পারলে চাকরিটাই যেতে পারে কোচ ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের।

যদিও ল্যাম্পার্ড বলছেন, আরেকটু সময় দরকার গুছিয়ে নেওয়ার জন্য।কিন্তু ভের্নার কিংবা হাভার্টজের সেরাটা বের করে আনার মতো ফরমেশন বা খেলার ধরন দেখাতে  পারেননি চেলসির এই কিংবদন্তি মিডফিল্ডার।খেলার ধরন আকর্ষণীয় হোক বা না হোক, ম্যাচে ইতিবাচক ফল পেলেই সমালোচনা দূরে সরিয়ে রাখতে পারতেন ল্যাম্পার্ড। যেটা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে উলে গুনার সুলশার করতে পারছেন।

ল্যাম্পার্ডের জন্য দুর্ভাগ্যজনক হলো, সুলশার তাঁর দল নিয়ে শীর্ষে আছেন। কিন্তু চেলসির বর্তমান অবস্থান তো ইউরোপে খেলার যোগ্যও নয়। এবার অন্য দলগুলোর তুলনায় অনেক বেশি বিনিয়োগ করেও লিগে চেলসির এমন দিশেহারা অবস্থায় ,তাই চিন্তার ভাঁজ ল্যাম্পার্ডের কপালে!

লিগে এখন পর্যন্ত বড় দলগুলোর মধ্যে লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, আর্সেনাল ও এভারটনের কাছে হেরেছে চেলসি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও টটেনহামের সঙ্গে করেছে ড্র। এই মুহূর্তে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষ দশে থাকা মাত্র একটি দলকেই হারাতে পেরেছে চেলসি এবং সেটি দশে থাকা ওয়েস্ট হাম। চেলসির সাবেক ফুটবলার গালাসের মতে, ‘আপনি যখন খেলোয়াড় কেনার জন্য ২৫ কোটি পাউন্ড (প্রায় ২ হাজার ৯০০ কোটি টাকা) খরচ করেন, তার মানে আপনি প্রিমিয়ার লিগ জিততে চান। বর্তমানে চেলসির অবস্থা খুব ভালো নয়। ওরা বড় দলের বিপক্ষে ভালো খেলছে না।’

কোচ ছাঁটাই করার জন্য বেশ বিখ্যাত চেলসির মালিক রোমান আব্রামোভিচ। গত এক   দশকে নয়জন কোচের দেখা মিলেছে চেলসিতে। গালাস তাই সাবেক সতীর্থকে নিয়ে   চিন্তিত, ‘এখন সব চাপ ফ্র্যাঙ্কের ওপর এবং ওকে খুব শিগগির একটা সমাধান বের করে নিতে হবে। কারণ, আমরা সবাই জানি, চেলসির ম্যানেজার মানেই খুব সহজেই চাকরি হারাতে পারেন। ওর ওপর অনেক চাপ এবং ওকে সঠিক পদ্ধতিটাই বেছে নিতে হবে।’

দলবদলে আসা নতুন তারকাদের মধ্যে দুই জার্মান খেলোয়াড় ভের্নার ও হাভার্টজ  মাঝে মাঝে কিছু ঝলক দেখালেও এখনো নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি। 

ল্যাম্পার্ডকে তাই দল নির্বাচনে আরেকটু কঠোর হতে বলছেন সাবেক ফ্রেঞ্চ ডিফেন্ডার, ‘ওরা ভের্নারকে অনেক অর্থ দিয়ে এনেছে, এ কারণেই হয়তো ফ্র্যাঙ্ক প্রতি ম্যাচেই ওকে নামাচ্ছে। কিন্তু এই খেলোয়াড় তার দক্ষতা দেখাতে পারছে না। 

হয়তো দলের খেলোয়াড় নির্বাচনে বদল আনা দরকার।আমি আশা করি, ফ্র্যাঙ্ক যত দ্রুত সম্ভব সমাধান খুঁজে বের করবে।সে একজন তরুণ কোচ, কিন্তু আমি নিশ্চিত ভবিষ্যতে সে দারুণ এক কোচ হবে।সে খুবই আবেগপ্রবণ এবং ফুটবল খুব ভালো বোঝে।’

- Advertisement -

আরও লেখা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

one × three =

- Advertisement -

সাম্প্রতিক লেখা